শিরোনাম : সিয়াম সাধনার নানা প্রস্তুতি ।। কাল থেকে শুরু পবিত্র রমজান সব মূর্তি অপসারণ দাবি! ।। গ্রিক দেবীকে অন্য কোথাও স্থান দেয়া যাবে না : হেফাজত চট্টগ্রামে সাত লাখ প্রি-পেইড মিটার লাগানোর নির্দেশ ।। চারটি প্রি-পেমেন্ট মিটারিং ভেন্ডিং স্টেশন উদ্বোধন করলেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ।। বিদ্যুৎতের ক্রাইসিস যাচ্ছে তবে পরিস্থিতি ভালোর পথে ভাস্কর্য সরানো নিয়ে প্রতিবাদ পুলিশের লাঠি টিয়ার গ্যাস লেকে পানি স্বল্পতা ।। কাপ্তাইয়ে পাঁচ জেনারেটরের মধ্যে উৎপাদনে আছে একটি Stop button Start button

 

  ফেইসবুকে ভক্ত হোন টুইটারে ভক্ত হোন গুগল প্লাস এ ভক্ত হোন। সাহায্য বিজ্ঞাপন শুল্ক পাঠক প্রতিক্রিয়া রেজিস্ট্রেশন

 

১২ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার ২০১৭ খ্রিঃ ২৯ পৌষ ১৪২৩ সাল ১৩ রবিউস সানি ১৪৩৮
    আজকের দিনে কোন ফিচার পাতা সংরক্ষিত নেই।
চট্রগ্রাম
আজকের দিনের তাপমাএা সংরক্ষিত নেই।

আজকে অনলাইন জরিপের জন্য কোন প্রশ্ন সংরক্ষিত নেই।
প্রথম পাতা   বিস্তারিত  

খাল শুকিয়ে মরা ।। চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে নৌপথে ব্যবসা বন্ধ হওয়ার উপক্রম

হাসান আকবর

দেশের আমদানি বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে নদী পথে ব্যবসা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। প্রশাসনিক নানা অবহেলার শিকার হয়ে চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে নৌ পথে বাণিজ্য অনেকটা মুখ থুবড়ে পড়েছে। খাল দখল ও ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের নামে খালের মোহনা ভরাটসহ বিভিন্ন কারণে নাব্যতা কমে যাওয়ায় চট্টগ্রামের বহুল ব্যবহৃত চাক্তাই ও রাজাখালী খাল এখন অনেকটাই শেষ নিঃশ্বাস ছাড়ছে। চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, এক সময় দেশের ব্যবসা বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ থেকে নদী পথে কোটি কোটি টাকার পণ্য সরবরাহ হতো। নিরাপদ এবং সাশ্রয়ী হওয়ায় নৌ পথে পণ্য পরিবহন বিশ্বব্যাপী সমাদৃত। চাক্তাই খাতুনগঞ্জের চাক্তাই খাল এবং রাজাখালী খাল ধরে প্রতিদিন শত শত নৌকা-সাম্পান দেশের নানা গন্তব্যে ছুটতো। পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন দুর্গম জনপদের পাশাপাশি বিচ্ছিন্ন দ্বীপগুলোতে এখান থেকে নৌকা এবং সাম্পানে পণ্য সরবরাহ হতো। ঢাকা সিলেট, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, বরগুনা ও খুলনাসহ দেশের প্রায় প্রতিটি জনপদে চট্টগ্রামের চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের পণ্য যেতো নৌ পথে। রাজাখালী খাল এবং চাক্তাই খাল থেকে কর্ণফুলী নদী হয়ে চট্টগ্রামের বিভিন্ন অঞ্চলসহ দেশের নানা গন্তব্যে ছুটতো নৌকা-সাম্পান। এর মধ্যে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী, হাটহাজারী, ফটিকছড়ি, রাউজান, আনোয়ারা, বাঁশখালী, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া, চকরিয়া ও পেকুয়াসহ নানা স্থানের পণ্য এই দুইটি খাল হয়ে সরবরাহ হতো।

কিন্তু দিনে দিনে নৌ পথের জৌলুশ হারিয়ে গেছে। এখন আর নদী পথে নৌকা-সাম্পানে আগের মতো পণ্য পরিবহন হয় না। খাল দখল হয়ে যাওয়ায় ইচ্ছে করলেও নদী পথে পণ্য পরিবহনের সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের।

চাক্তাই এবং রাজখালী খালের বিভিন্ন এলাকা যে যার মতো দখল করে আছেন। খালের পাড় ভরাট করে অনেকেই এখন সবজি বাগান করছেন। বস্তির ঘর তুলে দিয়ে ভাড়া দিয়েছেন, অসংখ্য পাকা স্থাপনাও রয়েছে খালের পাড় জুড়ে। খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণের এই মহোৎসব চলছে বছরের পর বছর। প্রশাসনের নিদারুন উদাসীনতায় খালের ভূমি বেহাত হচ্ছে দিনের পর দিন।

জানা যায়, চাক্তাই খালের সঙ্গে নগরীর বিভিন্ন এলাকার ১৩টি উপ-খালের সংযোগ রয়েছে। এসব খালের অবস্থাও চাক্তাই খালের মতো করুণ। কোন খাল থেকে নৌকা নিয়ে চাক্তাই খালে যাওয়ার সুযোগ নেই বললেই চলে। নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে চাক্তাই খালের ওপর অন্তত দশটি সেতু রয়েছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে সেতুর নিচ দিয়ে খাল ভরাট হয়ে অনেকটা সেতু ছুঁয়ে ফেলেছে।

ভরাট খালের নাব্যতা শূণ্যের কোটায় নেমে আসছে। তবে সন্দ্বীপ হাতিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে এখনো নৌ পথে পণ্য সরবরাহ করা হয় বলে জানা যায়। তবে এসব এলাকায় যাতায়াতে নৌকাগুলোকে জোয়ারের আশায় বসে থাকতে হয়। খালে পানি না থাকায় ইচ্ছে করলেও যখন তখন নৌকা নিয়ে যাত্রা করা যায় না। বিশেষ করে শীতকালে রাজাখালী ও চাক্তাই খালের পানি শুকিয়ে নৌ পথ অনেকটা বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় চাক্তাই-আসাদগঞ্জ-খাতুনগঞ্জের ঘাটগুলোতে নৌকা ভিড়ানো সম্ভব হয় না বলে জানান মাঝিরা। ঘাট থেকে দূরে নৌকা রেখে শ্রমিক দিয়ে মালামাল বোঝাই করতে হয়। এতে পরিবহন খরচ বেড়ে যায়। আবার বর্ষাকালে সেতুর নিচ দিয়ে নৌকা নেয়া যায় না। তখনো পণ্য পরিবহনে দেখা দেয় স্থবিরতা।

চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের একাধিক ব্যবসায়ী গতকাল দৈনিক আজাদীকে বলেন, চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের ব্যবসার বড় একটা অংশ চাক্তাই ও রাজাখালী খালের উপর নির্ভরশীল। আশির দশকের শুরু থেকে এখানে খাল দখলের মহোৎসব শুরু হয়। গত চার দশকে খালের বেশির ভাগ অংশই দখল হয়ে যায়। খাল দুইটির চূড়ান্ত সর্বনাশ করে কর্ণফুলী নদীর ক্যাপিটাল ড্রেজিং প্রকল্প। এই প্রকল্পের অংশ হিসেবে খালের মুখ এমন করে ভরাট করা হয়েছে যে, তাতে খাল দুইটি মৃতপ্রায় হয়ে উঠেছে।

সংশিহ্মষ্টরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রতিবছর খাল খননের নামে কোটি কোটি টাকা খরচ হলেও কার্যত চাক্তাই এবং রাজাখালী খালের অবস্থার কোন পরিবর্তন হচ্ছে না। উজানে খনন কাজ না করে মোহনার দিকে খনন করা হলে অনেক বেশি সুফল মিলতো বলেও অভিমত সংশ্লিষ্টদের।

ব্যবসায়ীরা বলেন, পঞ্চাশ-ষাটের দশকে রাজাখালী ও চাক্তাই খাল ১৫০ থেকে ২০০ ফুট পর্যন্ত প্রশস্ত ছিল। খাল দুটির গভীরতা ছিল ৮ থেকে ১০ ফুট। কিন্তু বর্তমানে এই খালের প্রশস্ততা ১৫ থেকে ৩০ ফুটে এসে ঠেকেছে। গভীরতা তিন থেকে চার ফুটের কাছাকাছি। এতে খাল দুইটিতে নৌকা-সাম্পান ভিড়াতে জোয়ারের অপেক্ষায় থাকতে হয় মাঝিদের।

গতকাল খাতুনগঞ্জের একাধিক ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, আশির দশকেও চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের পঞ্চাশ শতাংশ পণ্য নৌ পথে পরিবহন করা হতো। বর্তমানে তা দশ শতাংশেরও নিচে নেমে এসেছে। চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের প্রধান সমস্যাগুলোর মধ্যে খাল ভরাট হয়ে যাওয়া সবচেয়ে বড় সমস্যা বলে উল্লেখ করে ব্যবসায়ীরা বলেন, এতে সারা দেশের সঙ্গে খাতুনগঞ্জের নদীপথে ব্যবসা কমে যাচ্ছে। সড়কপথে পণ্য পরিবহন খরচ ব্যয় অত্যধিক হওয়ায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাজার গড়ে উঠছে।

খাতুনগঞ্জ ট্রেড এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব সৈয়দ ছগির আহমদ গতকাল দৈনিক আজাদীকে বলেন, চাক্তাই খাতুনগঞ্জের নৌ পথের ব্যবসা বাণিজ্য মুখ থুবড়ে পড়ছে। খাল দখল এবং ভরাট হয়ে যাওয়ায় সাশ্রয়ী এবং জনবান্ধব পথটি বন্ধ হতে চলেছে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এমপি এলেন, মন্ত্রী এলেন, মেয়র এলেন। সবাই আশার কথা শুনালেন। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হলো না। খাল দখল-ভরাট অব্যাহত রয়েছে। কর্ণফুলী নদী যেখানে ভরাট করে দখল করে ফেলা হচ্ছে সেখানে আর চাক্তাই বা রাজাখালী খালের অস্থিত্ব কোথায়? প্রশ্ন তোলেন সৈয়দ ছগির।

তিনি আরো বলেন, চাক্তাই-খাতুনগঞ্জের নৌ পথে বাণিজ্য পুনরুদ্ধার ও সম্প্রারণের জন্য কর্ণফুলী নদী কার্যকরভাবে খনন এবং চাক্তাই খালসহ শাখা খালগুলোর নাব্যতা বাড়াতে হবে। চাক্তাই-রাজাখালী খালের মুখে ুইসগেট নির্মাণ করতে হবে। চাক্তাই খাল খনন ও সংস্কারে বিশেষজ্ঞদের মতামতের ভিত্তিতে সিটি করপোরেশন ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং বাস্তবায়ন করতে হবে। আরএস জরিপ অনুযায়ী চাক্তাই খালকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা না হলে খাল খননের নামে ব্যয় করা কোটি কোটি টাকার খুব বেশি সুফল মিলবে না বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

 

পাঠকের মন্তব্য [০]   |    [১৭২] বার পঠিত

মন্তব্য প্রদানের জন্য( সাইনইন) করুন । নতুন ইউজার হলে (নিবন্ধন ) করুন ।